কুমিল্লা জেলার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার ছোট- বড় সব বাজারে চা দোকান থেকে শুরু করে ঔষধের দোকান পর্যন্ত এলপি গ্যাস সিলিন্ডার বিক্রি হচ্ছে।যেকোন সময় ভয়াবহ অগ্নিদূর্ঘটনা ঘটতে পারে। যেখানে সেখানে গ্যাস সিলিন্ডার বিক্রি করায় সাধারন জানমালের ক্ষয়ক্ষতির হৃমকি দেখা দিচ্ছে। বিস্ফোরক অধিদপ্তরের অনুমোদন ব্যতীত গ্যাস সিলিন্ডার বিক্রির সুযোগ সেই বলে উপজেলা প্রসাশন সূত্রে জানা যায় এবং লাইসেন্স আবেদন করার পর সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান অগ্নিদূর্ঘটনা রোধে সক্ষম কিনা যাচাই করে উক্ত প্রতিষ্ঠানকে গ্যাস সিলিন্ডার বিক্রির অনুমতি দেওয়া হয়। এসব নিয়মের তোয়াক্কা না করেই লাইসেন্স ব্যতীত যেকোন দোকানে অবাধে চলছে গ্যাস সিলিন্ডার বিক্রির ব্যবসা।

সরেজমিন শনিবার সকালে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে দেখা যায় মোদি দোকান,পানের দোকান,চা স্টল,হার্ডওয়্যার দোকান,ঔষধের দোকানসহ নানা ধরনের ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানে অবাধে গ্যাস সিলিন্ডার বিক্রি হচ্ছে এবং অগ্নিনির্বাপক ব্যবস্থার কোন বালাই চোখে পড়েনি।গ্রাহকেরা হাতের কাছেই গ্যাস সিলিন্ডার পাওয়ায় খুশি এবং মেয়াদ আছে কিনা যাচাই না করেই সিলিন্ডার ক্রয় করছেন।

এ বিষয়ে ক্রেতা হাবিব জানান,গ্যাস সিলিন্ডারে মেয়াদ থাকে কিনা আজ জানলাম,হাতের কাছে পাই বলেই দোকান বিবেচনা না করেই গ্যাস সিলিন্ডার কিনি। অতিরিক্ত লাভের আশায় যত্রতত্র গ্যাস সিলিন্ডারসহ নানা দাহ্য আইটেম বিক্রি করছে ব্যবসায়ীরা,এতে জীবন ঝুঁকি বেড়েই চলছে।

বাজারের ব্যবসায়ী আব্দুল কুদ্দুছ জানান, আমরা ব্যপক ঝুঁকির মধ্যে আছি। যেখানে সেখানে গ্যাস সিলিন্ডার বিক্রি করায় যেকোন সময় বড় কোন দূর্ঘটনা ঘটতে পারে।এতে আমরা সবাই ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার আশঙ্কায় থাকি।।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: