কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার শশীদল ইউনিয়নের রামচন্দ্রপুর ভাল্লক দক্ষিণ পাড়ায় গতকাল ৮ আগষ্ট শনিবার সকালে সীমানা প্রাচীর নির্মাণ করাকে কেন্দ্র করে দুই গ্রæপের সংঘর্ষে উভয় পক্ষের ৫ জন আহত হয়েছে। আহতরা ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও অন্যান্য হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। পরে উভয় গ্রæপের অবস্থানে থমথমে পরিবেশ সৃষ্টি হলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ব্রাহ্মণপাড়া থানার এস আই বাবুল হোসেন তার সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে অবস্থান করেন।

এলাকাবাসী ও মৃত রেয়াছত আলীর ছেলে আহত কামাল হোসেন জানান, ঘটনার দিন সকালে আমরা আমাদের বাড়ির সীমানা প্রাচীর নির্মাণ করতে গেলে হঠাৎ করেই একই গ্রামের ১০/১২ জন লোক এসে বাঁধা প্রদান করে। এবং কাজ বন্ধ রাখতে বলে। কারণ জানতে চাইলে আমাাদের সাথে তর্কবিতর্ক লাগে, এবং এক পর্যায়ে সীমানা প্রাচীর ভাঙ্গতে থাকে। আমরা বাধা প্রদান করলে প্রতিপক্ষরা হাতে দা ছেনা লাঠি নিয়ে আমাদের উপর হামলা চালায়। তখন তাদের হামলায় আমার ছেলে হাসিবুর রহমান (২০) ও আমার ভাই আতিকুর রহমান (৪২) আমি কামাল হোসেন (৪৮) আহত হই। আমাদেরকে এলাকাবাসী উদ্ধার করে ব্রাহ্মণপাড়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে। হামলাকারীরা হলেন, একই গ্রামের মৃত আবীদ আলীর ছেলে দুলাল মিয়া ও তার ভাই আবুল বাসার, মৃত আজম উদ্দিনের ছেলে আবদুল বারীক প্রকাশ সোয়াব আলী, ফিরোজ মিয়ার ছেলে হেলাল ও তার ভাই সোহেল, মৃত আবদুল কাদেরের ছেলে শাহ আলম, আবদুল জলিলের ছেলে আরিফ, মৃত আবুল কাশেমের ছেলে রেজাউল সহ আরও ৪/৫ জন। এসময় তারা আমাদের বাড়ির থাই গ্লাস ও বাড়িঘর ভাংচুর করে।

এ ব্যাপারে প্রতিপক্ষের মৃত আবীদ আলীর ছেলে দুলাল মিয়া জানান, কামাল হোসেন গংরা রাস্তায় সীমানা প্রাচীর নির্মাণ করতে গেলে এলাকাবাসীসহ তাদেরকে বাঁধা প্রদান করি।

এসময় তারা উত্তেজিত হয়ে আমাদের উপরও হামলা চালায়। এসময় তাদের হামলায় ফিরোজ মিয়ার ছেলে হেলাল ও সোহেল আহত হয়।

এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত উভয় গ্রুপ থানায় অভিযোগ দাখিল করেন।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: