কুমিল্লার মুরাদনগরে প্রার্থীতা যাচাই বাছাইয়ে বাতিলের ভয় দেখিয়ে ঘুষ নেয়ার ভিডিও বিভিন্ন মাধ্যমে প্রকাশ পায়। তারই রেশ ধরে কুমিল্লার আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা দুলাল তালুকদার ও জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ মঞ্জুরুল আলম ঘটনস্থল মুরাদনগরে এসে ঘটনার সত্যতা পায়। পরে বিষয়টি উপরমহলকে অবহিত করলে গতকাল বুধবার অভিযুক্ত রিটার্নিং কর্মকর্তা বিল্লাল মেহেদীকে প্রত্যাহার করে তার স্থলে জেলার বরুড়া নির্বাচন অফিসার আজহারুল ইসলামকে দায়িত্ব দেয়া হয়। নিবার্চন পরিচালনা-২ অধিশাখার উপসচিব মো. আতিয়ার রহমান (স্মারক নং ১৭.০০.০০০০.০৭৯.৪১.০৫২.২১-৩৭) ওই প্রত্যাহার আদেশ দেন।

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মঞ্জুরুল আলম বলেন, বিল্লাল মেহেদীকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। তার স্থলে বরুড়া উপজেলা নির্বাচন অফিসার দায়িত্ব পালন করবেন।

উল্লেখ্য: ষষ্ঠ ধাপে ইউপি নির্বাচনে মুরাদনগর উপজেলায় ৩১ জানুয়ারি ভোট গ্রহণ হবে। গত ৬ জানুয়ারি ছিল প্রার্থীতা যাচাই-বাছাইয়ের দিন। প্রার্থিতা বাছাইয়ের জন্য উপজেলার ২১টি ইউনিয়নের বিপরীতে সাতটি বুথ তৈরি করা হয়। সেই সুবাদে হোমনা উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা বিল্লাল মেহেদী রিটার্নিং অফিসারের দায়িত্বে ছিলেন উপজেলার যাত্রাপুর, বাঙ্গরা পূর্ব ও বাঙ্গরা পশ্চিম-এই তিন ইউনিয়নের। সে সময় তিনি প্রার্থিতা যাচাই-বাছাইয়ে বাতিলের ভয় দেখিয়ে প্রাথর্ীপ্রতি ৫০০-১০০০ টাকা আদায় করেন।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: