২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেটে সিগারেটের তুলনায় বিড়ির উপর বৈষম্যমূলক ট্যাক্স বৃদ্ধির প্রতিবাদে কুমিল্লার লাকসামে মানববন্ধন করেছে বিড়ি শ্রমিকরা। শনিবার দুপুরে লাকসাম প্রেসক্লাবের সামনে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে বিড়ি শ্রমিকদের মজুরী বৃদ্ধি ও বিড়ি শিল্পের সুরক্ষা আইন বাস্তবায়ন সহ ৬ দফা দাবি উত্থাপন করেন বিড়ি শ্রমিকরা। মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, ২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেটে কমদামী সিগারেটের তুলনায় বিড়ির উপর বেশি ট্যাক্স বৃদ্ধি করা হয়েছে। একে বৈষম্যমূলক আচরণ উল্লেখ করে বিড়ি শিল্পের জন্য এটি হুমকিস্বরূপ বলে দাবি করেন বক্তারা। তারা বলেন, ট্যাক্স বৃদ্ধির প্রভাবে বিড়ি ফ্যাক্টরি কমে গেলে সারা দেশে লক্ষ লক্ষ বিড়ি শ্রমিক বেকার হয়ে যাওয়ার আশংকা রয়েছে।

লাকসাম উপজেলা বিড়ি মজদুর ইউনিয়নের সভাপতি মিজানুর রহমান বলেন, ‘কমদামী সিগারেটের চেয়ে বিড়িতে প্যাকেট প্রতি ২ টাকা বেশি ট্যাক্স বৃদ্ধি করা হয়েছে। এটি বিড়ি শিল্পের উপর চরম বৈষম্যমূলক আচরণ। বিদেশি সিগারেট কোম্পানীকে সুবিধা দিতেই এই বৈষম্য করা হয়েছে। যা দেশীয় শিল্পের প্রতি বিমাতাসুলভ আচরন ছাড়া কিছুই নয়। দীর্ঘদিন ধরে বিড়ি শিল্পকে ধ্বংস করার জন্য গভীর ষড়যন্ত্র চলছে। প্রস্তাবিত বাজেটে তার প্রতিফলন ঘটছে।

সাধারণ সম্পাদক গোলাম সরওয়ার বলেন, ‘প্রস্তাবিত বাজেটে বিড়ি শিল্পের উপর যে বৈষম্য মূলক আচরণ করা হয়েছে, তা এ শিল্পের জন্য চরম হুমকি স্বরূপ। এর ফলে বিড়ি ফ্যাক্টরি কমে যাবে, আর করোনা পরিস্থিতিতে বেকার হয়ে যাবে লক্ষ লক্ষ বিড়ি শ্রমিক। যার ফলে শ্রমিকরা করোনা আক্রান্ত না হয়ে অনাহারেই মৃত্যুর দিকে ধাবিত হবে। এছাড়াও নকল বিড়ি বিক্রয় বৃদ্ধির ফলে সরকারও রাজস্ব হারাবে।’

ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধনে লাকসাম উপজেলার শতাধিক বিড়ি শ্রমিক উপস্থিত ছিলেন।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: