কুমিল্লার নাঙ্গলকোটে মাদ্রাসার ১ম শ্রেণীর এক শিশু শিক্ষার্থীকে (৯) ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। গত সোমবার বিকেলে উপজেলার বক্সগঞ্জ ইউনিয়নের শুভপুর ওয়াছাকিয়া কুরআনিয়া মাদ্রাসা ও এতিমখানায় ঘটনাটি ঘটেছে। শিশুটির গ্রামের বাড়ি একই ইউনিয়নের কদমতলী। পুলিশ ধর্ষক মাদ্রাসা শিক্ষক মৌলভী বিল্লাল হোসেনেকে মাদ্রাসা থেকে গ্রেফতার করেছে। তিনি খাগড়াছড়ি জেলার মানিকছড়ি উপজেলার চেংগুছড়া গ্রামের আবুল কালামের ছেলে। ধর্ষিতা শিশুটিকে গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় প্রথমে নাঙ্গলকোট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। পরে তার অবস্থার অবনতি হলে তাকে কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এব্যাপারে শিশুটির পিতা বাদি হয়ে মাদ্রাসা শিক্ষককে আসামী করে থানায় মামলা দায়ের করেন।

ধর্ষিতার পারিবারিক ও মামলা সূত্রে জানা যায়, শিশু শিক্ষার্থী গত প্রায় দুই বছর ধরে উপজেলার বক্সগঞ্জ ইউনিয়নের শুভপুর ওয়াছাকিয়া কুরআনিয়া মাদ্রাসা ও এতিমখানায় লেখাপড়া করে আসছেন। গত সোমবার বিকেলে মাদ্রাসার শিক্ষক মৌলভী বিল্লাল হোসেন মাদ্রাসার সকল শিক্ষার্থীকে ছুটি দিয়ে শিশু শিক্ষার্থীকে মাদ্রাসার একটি কক্ষে নিয়ে ধর্ষণ করে। পরে শিশু শিক্ষার্থীটি তাদের ভাড়া বাড়ি একই ইউনিয়নের আজিয়ারা গ্রামে আসলে তার মা শিশুটির গোপনাঙ্গে রক্তক্ষরণ হতে দেখেন। এসময় শিশুটি মাদ্রাসার শিক্ষক মৌলভী বিল্লাল হোসেন কর্তৃক তাকে ধর্ষণের ঘটনাটি জানান। পরে শিশুটির মা এবং বাবা গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় তাকে নাঙ্গলকোট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসেন। নাঙ্গলকোট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক শিশুটি গুরুতর অসুস্থ হওয়ায় তার মা-বাবার মাধ্যমে তাকে থানায় প্রেরণ করেন।

পরে থানা পুলিশ তাকে কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে। পুলিশ গত সোমবার রাতে মাদ্রাসা থেকে ধর্ষক মৌলভী বিল্লাল হোসেনকে গ্রেফতার করে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক (এসআই) আনোয়ার হোসেন খন্দকার বলেন, এলাকাবাসীর মাধ্যমে ধর্ষনের বিষয়টি জানার পর মাদ্রাসায় গিয়ে ধর্ষককে আটক করি। শিশু শিক্ষার্থীকে উন্নত চিকিৎকার জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরন করি। মঙ্গলবার শিশুটির পিতা বাদী হয়ে নাঙ্গলকোট থানায় ৯ এর(১)ধারায় ধর্ষকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। আসামীকে কুমিল্লা আদালতে প্রেরন করা হয়েছে।

৬-৪-২১

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: