বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়েছে মরণঘাতী করোনাভাইরাস। এতে স্থবির হয়ে পড়েছে জনজীবন। কর্মহীন হয়ে পড়েছে সর্বসাধারণ। বিপাকে পড়তে হয়েছে নিম্নবিত্ত ও মধ্যবিত্তদের।

এরই মধ্যে বোরো ধান পাকতে শুরু করেছে। ধানের বাম্পার ফলন হলেও করোনা আতঙ্কে ধানকাটা শ্রমিক সংকট দেখা দিয়েছে। ফলে ধানকাটা ও মাড়াই নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন কৃষক। এমন এক সময়ে কুমিল্লা তিতাস উপজেলার মনাইরকান্দি গ্রামের শিক্ষার্থী ও যুবকরা সেচ্ছাশ্রমে কৃষকের ধান কেটে বাড়ি পৌঁছে দিচ্ছে।

উপজেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি পাভেল মাহমুদ ও ব্যবসায়ী নাজমুল ভূইয়ার উদ্যোগে গত ১৫ দিন ধরে উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের কৃষকের ধান কেটে বাড়ি পৌঁছে দিচ্ছে। তারই ধারাবাহিকতায় (৩০ এপ্রিল) বৃহস্পতিবার সকালে মনাইরকান্দি গ্রামের কৃষক সুন্দর মুন্সির জমির ধান কেটে বাড়ি পৌঁছে দিয়েছেন তারা। তাদের এমন উদ্যোগকে প্রশংসা করছেন সচেতনমহল।

এসময় তাদেরকে উৎসাহিত করতে ধান কাটায় অংশ গ্রহণ করেন গাজীপুর খান সরকারি মডেল স্কুল এন্ড কলেজের অভিভাবক ফোরামের সহ সভাপতি, বাতাকান্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আক্তার হোসেন মাস্টার ও কাপাসকান্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক দেলোয়ার হোসেন, নাজমুল, তমিজ, রুবেল, আরিফ, বাবু, মিনহাজ, রোহান, রাকিব, এমরান, শরীফ, মিঠু, সজীব, বাদশা, রাসেল, মোকারম, আবদুল্লাহ, মেহেদি, শুভ, নয়ন, সাইদ আনোয়ার, সজিব প্রমূখ।

এবিষয়ে উপজেলা ছাত্রলীগ সহ-সভাপতি পাভেল মাহমুদ বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় ও কুমিল্লা-২ আসনের এমপি সেলিমা আহমাদ মেরী, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো.পারভেজ হোসেন সরকার ও কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ভাইস চেয়ারম্যান ফরহাদ আহমেদ ফকিরের সহযোগিতা ও পরামর্শক্রমে কৃষকদের পাশে দাঁড়িয়েছি। ইনশাআল্লাহ কৃষককের ধান যতদিন থাকবে ততদিন আমাদের এই কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: