কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার শশীদল দক্ষিণপাড়া গ্রামে শাহ আলমের বসত ঘরে দুর্বৃত্তের দেওয়া আগুনে বসত ঘর ও গৃহপালিত পশুসহ আসবাবপত্র পুড়ে ভষ্মিভূত হয়। সাড়ে ৩ ঘন্টা চেষ্টার পর আগুন নিয়ন্ত্রনে আনে এলকাবাসী। এতে ৬ লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়ছে বলে দাবী করেছে ক্ষাতিগ্রস্থ পরিবারের লোকজন। ঘটনাটি গত ৬ মার্চ দিবাগত মধ্যরাতে ঘটেছে।
পুলিশ জানায়, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে অগ্নিকান্ডের ঘটনাটি ঘটেছে।

ক্ষাতিগ্রস্থ ঘরের মালিক, ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার শশীদল দক্ষিণপাড়া গ্রামের হাসান কাজীর বাড়ীর আবু তাহেরের ছেলে শাহ আলম জানান, আমার ভাই তাজুল ইসলামের ছেলে সবুজ (২২) ও তার আরো কয়েকজন সহযোগী নিয়ে পূর্ব শত্রুতার জেরধরে শুক্রবার মধ্যরাতে আমার বসত ঘরে আগুন দেয়। বিষটি আমি ও আমার পরিবার টেরপেয়ে ডাক চিৎকার করি এবং আগুন নিয়ন্ত্রনে আনার চেষ্টা করি। এসময় আমাদের ডাক চিৎকারে সবুজ ও তার সহযোগীরা পালিয়ে যায়। পরে এলাকাবাসীর সহযোগীতায় রাত দেড়টা থেকে দীর্ঘ সাড়ে ৩ ঘন্টা চেষ্টার পর ভোর ৪ টায় আগুন নিয়ন্ত্রনে আনি। এতে আমার বসত ঘরসহ ঘরে থাকা ১৪০ মণ ধান, দুইটি ছাগল, সেচ পাম্প দুইটি, ধান মারাই যন্ত্রসহ আসবাবপত্র পুড়ে প্রায় ৬ লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

খবর পেয়ে ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফৌজিয়া সিদ্দিকা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এসময় তিনি উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারকে নগদ আর্থিক সহায়তা প্রদান করেন। উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফৌজিয়া সিদ্দিকা জানান, শশীদলে অগ্নিকান্ডের ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারকে প্রাথমিক ভাবে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ৫ হাজার টাকা আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হয়েছে। জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকেও তাদের সহায়তা প্রদানের প্রক্রিয়া চলছে। এছাড়াও ক্ষাতিগ্রস্থ পরিবারকে “জমি আছে ঘর নাই প্রকল্পের” আওতায় মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর দেওয়া ঘরের কাজ ঘরের কাজ দ্রুত সময়ের মধ্যে সম্পন্ন করে দেওয়া হবে।

খবর পেয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আজম উদ্দিন মাহমুদ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। তিনি জানান, শশীদলের অগ্নিকান্ডের ঘটনাস্থল পরিদশর্ন করেছি। অগ্নিকান্ডের ঘটনার সাথে জরিতদের গ্রেফতারের পক্রিয়া চলছে।