লাকসাম উপজেলার মুদাফরগঞ্জ উত্তর ইউনিয়নের আউশপাড়া এলাকার কাঠালিয়া গ্রামে এক ছাত্রলীগ নেতার বাড়িতে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা ও তার সহযোগীদের হামলায় নারী ও শিশুসহ ২ জন আহত হয়েছে। এ ঘটনায় ওই ছাত্রলীগ নেতার মা বাদী হয়ে লাকসাম থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।

থানায় দায়েরকৃত লিখিত অভিযোগ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, পুত্রবধূ কর্তৃক শাশুড়িকে মারধরের ঘটনায় একটি শালিসকে কেন্দ্র করে মুদাফরগঞ্জ কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি জাহিদ হোসেনের সাথে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য বাবুল মিয়ার বাকবিতণ্ডা হয়। এর জের ধরে সোমবার দিবাগত রাত আটটায় বাবুল মিয়া ও তার ভাই জসিমসহ ১৭/১৮ জন জাহিদের বাড়িতে হামলা চালায়।

এসময় দুর্বৃত্তরা দা, ছেনি, লোহার রডসহ দেশিয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে হামলা চালিয়ে বশত ঘরের জানালার থাই গ্লাস, আলমারি, সোফাসহ আসবাবপত্র তছনছ ও টিনের বেড়া পর্দা করা রান্নাঘর কুপিয়ে ভাংচুর এবং ঘরে থাকা নগদ টাকা ও স্বর্ণের চেইন নিয়ে যায়। এতে প্রায় আড়াই লাখ টাকার ক্ষতি সাধিত হয়। হামলায় জাহিদের মা বিনোয়ারা বেগম (৫০) ও তার ভাগ্নি সিফাত হোসেন (১৭ মাস) আহত হয়। আহতদের লাকসাম সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। এ ঘটনায় বাবুল ও জসীমসহ ৬ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা আরও ১০/১২ জনের বিরুদ্ধে লাকসাম থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

এদিকে, হামলা ও ভাংচুরের অভিযোগ অস্বীকার করে আওয়ামী লীগ নেতা বাবুল মিয়া জানান, এ ঘটনার সাথে আমি জড়িত নই। তারা নিজেরাই এ ঘটনা ঘটিয়েছে।

মুদাফরগঞ্জ উত্তর ইউপি চেয়ারম্যান শাহীদুল ইসলাম শাহীন জানান, ঘটনাটি আমি শুনেছি। ঘটনাস্থল পরিদর্শনে গিয়ে বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা করব।

অভিযোগের প্রেক্ষিতে ঘটনাস্থল পরিদর্শনকালে লাকসাম থানার এসআই আবু নাসের জানান, ঘটনার তদন্ত করে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: