কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার দুলালপুর গ্রামের এক প্রবাসী যুবক মোঃ জলিল (৩৯) গত ২১ জুন সৌদি আরবের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেছেন। এঘটনায় ওই দিনের পর থেকে মৃত জলিলের পরিবারে ও এলাকায় শোকের ছায় নেমে আছে। মৃত মোঃ জলিল দুলালপুর ইউনিয়নের দুলালপুর উত্তরপাড়া গ্রামের স্বেকান্দর মহাজনের বাড়ির মৃত আব্দুর রশিদের ছেলে।

মৃত জলিলের পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, বৃদ্ধা মা ও স্ত্রীসহ ৩ সন্তান এবং স্বজনদের সুখের কথা চিন্তা করে পরিবারের একমাত্র উপর্জনকারী মোঃ জলিল গত ২০১৯ ইং সালের ১ নভেম্বর জীবিকার তাগিদে সৌদি আরবে যান। সেখানে গিয়ে তিনি সৌদির আবা মামিস মসজিদ আবাসিক এলাকায় ইলেট্রিকের কাজ করে আসছিলো। গত ২১ জুন বাংলাদেশের সময় দুপুর ২টায় তার সহকর্মী হেলাল নামের এক ব্যাক্তি মোবাইল ফোনে জলিলের মৃত্যু সংবাদ আমাদের জানায়। সে জানায়, গত ১৯ জুন সৌদি আরবের সময় দুপুর ২টায় জলিল বুকে ব্যাথা অনুভব করলে তাহাকে ঐ দেশের স্থানীয় একটি হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নেওয়া হয়। পরে সেখানে জলিল ২১ জুন চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করে।

এব্যাপারে মৃত জলিলের চাচাত ভাই শাহ আলম মহাজন জানান, পরিবারের একমাত্র উপর্জনকারী ছিলো জলিল। মার মৃত্যুতে তার পরিবার একেবারে অসহায় হয়ে পড়েছে। জলিলের পরিবারে রয়েছে তার বৃদ্ধা মা, স্ত্রী ও তার ছোট ছোট তিন সন্তান। তিনি জানান, মৃত জলিলের মরদেহ সৌদি আরব থেকে বাংলাদেশে পাঠানোর জন্য সৌদিতে তার সহকর্মীরা কর্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। এসময় তিনি জলিলের মরদেহ দেশে আনার বিষয়ে এবং শোকাহত অসহায় পরিবারের পাশে দাড়াতে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ ও সরকারের সহযোগিতা কমনা করেন।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: