নিজস্ব প্রতিবেদকঃ কুমিল্লার বুড়িচং বাজেবাহেরচর গ্রামে বোমা বিস্ফোরণের ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। শনিবার ভোর ৪টায় জেলার বুড়িচং উপজেলার গোমতী নদীর পাশে বাজেবাহের চর গ্রামের জাফর আলীর বাড়িতে এ বোমা বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে চট্টগ্রাম রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি (ক্রাইম) আবু ফয়েজ,কুমিল্লা জেলা পুলিশ সুপার শাহ আবিদ হোসেন, সদর সার্কেল তানভীর সালেহীন ইমন, জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ওসি মঞ্জুরুল আলম, বুড়িচং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মনোজ কুমার দে,সিআইডি কর্মকর্তা অনেকেই ঘটনাস্থল পরিদর্শণ করেছেন। এসময় পুলিশ কিছু আলামত সংগ্রহ করে নিয়ে যায়।

ঈুলিশ ও স্থানীয় এলাকাবাসী সুত্র জানায়,জেলার বুড়িচং উপজেলার ময়নামতি ইউনিয়নের গোমতী নদীর তীরবর্তী বাজেবাহের চর গ্রামের পশ্চিম পাড়ার মরহুম জাফর আলীর বাড়িতে শনিবার ভোর ৪ টায় বিকট শব্দে একটি বোমা বিস্ফোরণের শব্দ হয়। এতে বাড়ির জানালার কাঁচ ভাংচুরসহ ক্ষয়ক্ষতি হয়। শব্দ শুনে পাশ্ববর্তী বাড়ির লোকজন এসে বাড়ির বারান্দায় কলাপসিবল গেটের সাথে ধোঁয়া এবং একটি ডিভাইস ও তারযুক্ত বোমা সদৃশ্য বস্তুর অংশ বিশেষ পড়ে থাকতে দেখেন। বিস্ফোরণের বিকট শব্দে এলাকার মানুষ আতংকিত হয়ে পরে। স্থানীয় সুত্র জানান,ওই গ্রামের মৃত জাফর আলির ৪ ছেলে সৌদিআরব প্রবাসী। তার মাঝে জহিরুল ইসলাম ও শফিকুর রহমান সম্প্রতি সৌদি আরব থেকে ছুটিতে বাড়ি আসেন। শুক্রবার রাতে বাড়ির সবাই ঘুমিয়ে পড়ে। ভোর রাতে বিষ্ফোরণের শব্দে সবাই ঘুম থেকে জেগে উঠে । তবে এতে বাড়ির কোন লোক হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। ঘটনার পর থেকে এলাকায় আতংক বিরাজ করছে।

 

স্থানীয় একাধিক এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে জানা যায়। পরিবারের সকল পুরুষ সদস্যই প্রবাসে থাকেন। কুচক্রী কোন মহল বা ব্যক্তিগত দুশমনির বা হয়রানী করতে এঘটনার সুত্রপাত করে থাকতে পারেন। বুড়িচং থানার ওসি মনোজ কুমার দে জানান, ঘটনার সাথে জড়িত কাউকে এ সময় পযন্ত সন্দেহভাজন কাউকে আটক করা হয়নি। তবে পুলিশি তদন্ত অব্যাহত রয়েছে।

এ বিষয়ে কুমিল্লা পুলিশ সুপার মোঃ শাহ আবিদ হোসেন বলেন, ঘটনাস্থল থেকে বিভিন্ন আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে। আশেপাশের লোকজন সহ পরিবারের লোকজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। প্রাথমিক ভাবে এখনো ঘটনার কোন কারন জানা যায় নি। আলামত পরীক্ষা নিরীক্ষার পরই বিস্তারিত জানা যাবে। এখনো কাউকে আটক করা সম্ভব হয়নি।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: