কুমিল্লা-৫ (বুড়িচং-ব্রাহ্মণপাড়া) আসনে নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়েছে। ১৫ জুন মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন। নির্বাচন ১৪ জুলাই। এদিকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীরা কেন্দ্র থেকে মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করছেন। রবিরবার বিকাল পর্যন্ত ২০জনের মতো মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেছেন। তাদের মধ্যে রয়েছেন পাঁচজন বিদ্রোহী। তারা বিভিন্ন সময়ে জেলা পরিষদ, সিটি করপোরেশন ও উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দলের সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর বিরুদ্ধে নির্বাচন করেছেন। তারা হচ্ছেন, কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ হোসেন স্বপন, বুড়িচং উপজেলা আওয়ামী লীগ সদস্য সেলিম রেজা সৌরভ, মহানগর আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক আনিসুর রহমান মিঠু, বুড়িচং উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আখলাক হায়দার ও ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক কোষাধ্যক্ষ আবু জাহের।

সূত্রমতে, ২০১৬ সালে তৎকালীন বুড়িচং উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ হোসেন স্বপন বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে জেলা পরিষদে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করেন। ২০০৯ সালে উপজেলা আওয়ামী লীগ সদস্য সেলিম রেজা সৌরভ বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে বুড়িচং উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করেন। ২০১২ সালে জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আনিসুর রহমান মিঠু সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে বিদ্রোহী হিসেবে নির্বাচন করেন। ২০১৯ সালে বুড়িচং উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আখলাক হায়দার বিদ্রোহী হিসেবে বুড়িচং উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে বিজয়ী হন। ২০২০ সালে ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক কোষাধ্যক্ষ আবু জাহের বিদ্রোহী হিসেবে ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে বিজয়ী হন।

ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর খান চৌধুরী ও বুড়িচং উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি অ্যাড. আবুল হাশেম খান বলেন, যারা অতীতে দলের বিরুদ্ধে নির্বাচন করেছে। তারা দলের ক্ষতি করেছে। তাদের মনোনয়ন দেয়া উচিত নয়। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা নিশ্চয় এই বিষয়টি লক্ষ্য রাখবেন।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: