কুমিল্লার দেবীদ্বারে ৮ বছর বয়সী এক শিশু ধরে নিয়ে নিজ বাসায় ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগে সুজন(২৫) নামে এক সিএনজি চালককে আটক করেছে পুলিশ।

ঘটনাটি ঘটে শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০টায় দেবীদ্বার পৌর সভার হিলফুল ফুজুল স্কুলের পূর্বপাশে মোহনা আবাসিক এলাকার অধ্যাপক মিজানুর রহমান শেলী’র পাঁচতলা ভবনের নিচ তলার ভাড়াটিয়া মাদকাসক্ত সিএনজি চালক সুজন মিয়ার বাসায়। আটক সুজন মিয়া উপজেলার সুবিল ইউনিয়নের শিবনগর গ্রামের মোহাম্মদ আলীর পুত্র।

স্থানীয়রা জানান, সকাল সাড়ে ১০টায় ৮বছর বয়সী এক কণ্যাশিশু ওই বাসায় বিলেবু আনতে গেলে সুজনমিয়া তাকে জোর করে ধরে নিয়ে তার বাসার একটি কক্ষে আটক করে মুখ চেপে ধর্ষণের চেষ্টা করে। শিশুটি সূর-চিৎকারে পাশের বাসার লোকজন দরজায় নক করলে সূজন দরজা খুলতে গেলে মেয়ে পালিয়ে পাশের বাসায় আশ্রয় নেয় এবং ঘটনাটি খুলে বলে।

স্থানীয়রা সুজনকে আটক রেখে পুলিশকে খবর দেয়। সংবাদ পেয়ে দেবীদ্বার থানার উপ-পরিদর্শক (এস,আই) মোরশেদ আলম একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থল থেকে অভিযুক্ত সুজন ও ভিক্টিম শিশুটিকে থানায় নিয়ে যায়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই বাসার কয়েকজন ভাড়াটিয়া অভিযোগ করে বলেন, সুজন পেশায় একজন সিএনজি চালক। প্রায় দেড় বছর আগে সুজন বাসাটি ভাড়া নেয়। বাসার সে তার স্ত্রিকে নিয়ে থাকত। রাতে তার বাসায় গাঁজা, ইয়াবা, মদের আড্ডা চলত। এ এলাকার অপরাধ জগতের নানা শ্রেণীর চেনা-অচেনা লোকজনের আনাগোনা দেখে বাড়ির মালিককে সতর্ক করলেও তিনি ভাড়াটিয়া সুজনের বিষয়ে কোন ব্যবস্থা নেননি।

একই এলাকার সিফাত হোসেন জানান, সুজন মাদক সেবকই ছিলেননা তিনি মাদক বিক্রি করতেন, পুলিশ তার ঘর তল্লাসীর সময় ইয়াবা সেবনের সামগ্রী তার সয্যার পাশে পেয়েছেন। জিঞ্জাসাবাদে সুজন জানায়, মাদক বিক্রি করতনা, কোম্পানীগঞ্জ থেকে ইয়াবা গাঁজা এনে সেবন করতেন।

ভিক্টিম শিশু(৮)টি জানান, সে প্রায়ই এ বাসা থেকে বিলেবু নিতে আসতেন। ঘটনার সময় তাকে ধরে নিয়ে রোমে আটকে মুখ চেপে ধর্ষণের চেষ্টা চালায় তখন তার চিৎকারে প্রতিবেশীরা এসে উদ্ধার করে। সে আরো জানায়, তাদের বাড়ি বুড়িচং উপজেলার সাবেরবাজার এলাকায়। বাবা রতন মিয়া সাবের বাজার, কংশনগর বাজার, দেবীদ্বার বাজারে মাছ বিক্রি করেন। মা’ হাছিনা বেগম তিন বছর ধরে ওমান প্রবাসী আছেন। ১ভাই ও ৪বোনের মধ্যে সে সবার ছোট। দেবীদ্বার পৌর এলাকার বানিয়াপাড়া ফুলগাছ তলায় ভাড়া বাসায় থাকেন। তার ভাই শরীফ(১৫)ও বাবার সাথে মাছ ব্যবসায় সহযোগীতা করেন।

মোহনা আবাসিক এলাকার বাসিন্দা ও দেবীদ্বার পৌর ৮নং ওয়ার্ড আ’লীগের সাধারন সম্পাদক মোঃ মিজানুর রহমান খোকন জানান, সংবাদপেয়ে তাকে আটক করে পুলিশে সোপার্দ করি। ঘটনার সময় তার স্ত্রী বাসায় ছিলেন না। তার বিরুদ্ধে নানা অপরাধ সংগঠনের অভিযোগ পেয়েছি।

এ ব্যাপারে দেবীদ্বার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি তদন্ত) ছমিউদ্দিন এর সাথে শুক্রবার বিকেল পৌনে ৪টায় সেল ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, এখনো মামলা হয়নি, বিষয়টি তদন্তাধিন। ভিক্টিমের পরিবারের পক্ষ থেকে মামলা করতে আগ্রহী হলে রাতে মামলা হতে পারে।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: