ডেস্ক রিপোর্টঃ আইনজীবীদের নিয়ন্ত্রকারী সংস্থা বাংলাদেশ বার কাউন্সিল নির্বাচনে সবচেয়ে বেশি ভোট পেয়ে বিজয়ী হওয়ার পথে বার কাউন্সিলের বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান ও সিনিয়র আইনজীবী কুমিল্লার অ্যাডভোকেট আবদুল বাসেত মজুমদার। সারাদেশের বিভিন্ন জেলার মধ্যে তিনি বেশিরভাগ জেলায় প্রথম হয়েছেন। এছাড়া কুমিল্লায় বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ সমর্থিত সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদের মনোনীত প্যানেলের ৭ প্রার্থীর মধ্যে ৫ জন এগিয়ে আছেন। সেই সাথে বিজয়ের পথে ঐ প্যানেলের তিনটি আঞ্চলিক সদস্য প্রার্থীরা।

সোমবার সকাল ১০টা থেকে কুমিল্লাসহ সারাদেশে একযোগে ভোট গ্রহণ শুরু হয়। চলে বিকেল ৫টা পর্যন্ত। এবারের নির্বাচনে মোট ভোটার সংখ্যা ছিল ৪৩ হাজার ৮শ’ ৮৪ জন আইনজীবী।

নির্বাচনে বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ সমর্থিত সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদের মনোনীত প্যানেলের প্রার্থীরা হলেন- বার কাউন্সিলের বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল বাসেত মজুমদার, ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন, সৈয়দ রেজাউর রহমান, জেড আই খান পান্না, পরিমল চন্দ্র গুহ ও শ. ম রেজাউল করীম। এই সাতজন সাধারণ সদস্য পদে লড়ছেন। সাতটি আঞ্চলিক সদস্য পদে আছেন- এ গ্রুপ থেকে কাজী নজিবুল্লাহ হিরু, বি গ্রুপ থেকে মো. কবির উদ্দিন ভূঁইয়া, সি গ্রুপ থেকে ইব্রাহিম হোসেন চৌধুরী বাবুল, ডি গ্রুপ থেকে এ এফ মো. রুহুল আনাম চৌধুরী, ই গ্রুপ থেকে পারভেজ আলম খান, এফ গ্রুপ থেকে মো. ইয়াহিয়া ও জি গ্রুপ থেকে মো. রেজাউল করিম মন্টু।

বিএনপি ও সমমনা সমর্থক জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য প্যানেলের সাধারণ সদস্য প্রার্থীরা হলেন- সাবেক এটর্নি জেনারেল এ জে মোহাম্মদ আলী, ফজলুর রহমান, তৈমূর আলম খন্দকার, বোরহানউদ্দিন, হেলালউদ্দিন মোল্লা, মো. আব্বাস উদ্দিন ও আসিফা আশরাফী পাপিয়া। অঞ্চলভিত্তিক সদস্য পদে এ গ্রুপ থেকে মো. মহসীন মিয়া, বি গ্রুপ থেকে বাধন কুমার গোস্বামী, সি গ্রুপ থেকে শেখ মোখলেসুর রহমান, ডি গ্রুপ থেকে মো. দেলোয়ার হোসেন চৌধুরী, ই গ্রুপ থেকে এস আর ফারুক ও এফ গ্রুপ থেকে মো. ইসহাক।

প্রতি তিন বছর অন্তর বাংলাদেশ বার কাউন্সিল নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। একজন ভোটার মোট আটটি ভোট দিতে পারেন। এর মধ্যে সাধারণ আসনের জন্য ৭টি ভোট এবং অঞ্চলভিত্তিক একটি ভোট। বার কাউন্সিল ১৫ জন সদস্যের সমন্বয়ে পরিচালিত হয়। এর মধ্যে রাষ্ট্রের এটর্নি জেনারেল পদাধিকার বলে এর চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেন। বাকি ১৪ জন আইনজীবীদের সরাসরি ভোটে নির্বাচিত হন।

১৪ জনের মধ্যে সংখ্যাগরিষ্ঠ মতামতের ভিত্তিতে একজন ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। সারাদেশে সনদপ্রাপ্ত আইনজীবীদের (বার কাউন্সিলের সদস্য) ভোটে সাধারণ আসনে সাতজন এবং দেশের সাতটি অঞ্চলের লোকাল আইনজীবী সমিতির সদস্যদের মধ্য থেকে একজন করে সাতজন নির্বাচিত হয়ে থাকেন।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: