আশিকুর রহমানঃ ৬ মে সারাদেশের ন্যায় কুমিল্লা শিক্ষাবোর্ড, মাদ্রাসা বোর্ড এবং কারিগরি বোর্ডের অধিনে ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলায় এসএসসি ও সমমানের ফল প্রকাশ করা হয়। এ বছর এ উপজেলায় এসএসসি, দাখিল ও সমমান থেকে ৩৪৪০ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ গ্রহন করে ২৭৭০ জন শিক্ষার্থী পাস করে। এদের মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৮৭ জন শিক্ষার্থী। এ উপজেলায় পাসের হার ৮০. ২১৪৫৪ % বলে নিশ্চিত করেন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ নূরে আলম ছিদ্দিক।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা যায়, এবছর অনুষ্ঠিত এসএসসি পরীক্ষায় ব্রাহ্মণপাড়া ভগবান সরকারী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১০৮ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ১০৭ জন শিক্ষার্থী এবং জিপিএ- ৫ পেয়েছে ৩৪ জন শিক্ষার্থী। পোমকাড়া ছিদ্দিকুর রহমান এন্ড হাকিম উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৪৮ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ৪২ জন শিক্ষার্থী। নাজনীন উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১০৯ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ৮৪ জন শিক্ষার্থী এবং জিপিএ- ৫ পেয়েছে ২ জন শিক্ষার্থী। চান্দলা কেবি হাই স্কুল এন্ড কলেজ থেকে ২৫৭ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ১৬৭ জন শিক্ষার্থী। জিরুইন বহুমূখী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১২০ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ৯৪ জন শিক্ষার্থী। প্রফেসর সেকান্দর আলী ভূইয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৫৪ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ৪৩ জন শিক্ষার্থী। বড়ধুশিয়া উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১০৭ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ৬৫ জন শিক্ষার্থী। মালাপাড়া উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১০৬ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ৮৪ জন শিক্ষার্থী এবং জিপিএ- ৫ পেয়েছে ৩ জন শিক্ষার্থী। শশীদল ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ২০৪ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ১৭৭ জন শিক্ষার্থী এবং জিপিএ- ৫ পেয়েছে ৫ জন শিক্ষার্থী। নাগাইশ জাহিদুল হোসেন উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১৪৩ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ১২৬ জন শিক্ষার্থী এবং জিপিএ- ৫ পেয়েছে ৩ জন শিক্ষার্থী। ধান্যদৌল আবদুর রাজ্জাক খান চৌধুরী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১৪১ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ১৩৮ জন শিক্ষার্থী এবং জিপিএ- ৫ পেয়েছে ৩ জন শিক্ষার্থী। গোপালনগর বিএবি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১৩৫ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ১২৬ জন শিক্ষার্থী। কান্দুঘর বিবিএস উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৬৯ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ৬৩ জন শিক্ষার্থী এবং জিপিএ- ৫ পেয়েছে ১ জন শিক্ষার্থী। শিদলাই আশরাফ মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে ১৫৬ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ১৫১ জন শিক্ষার্থী এবং জিপিএ- ৫ পেয়েছে ৫ জন শিক্ষার্থী। দুলালপুর এস এম এন্ড কে উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১৪৪ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ১২২ জন শিক্ষার্থী এবং জিপিএ- ৫ পেয়েছে ৩ জন শিক্ষার্থী। মাধবপুর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১৫২ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ১১৪ জন শিক্ষার্থী এবং জিপিএ- ৫ পেয়েছে ৫ জন শিক্ষার্থী। সাহেবাবাদ লতিফা ইসমাইল উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৩০৭ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ২৩৫ জন শিক্ষার্থী। তেতাভূমি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১০৮ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ৬০ জন শিক্ষার্থী এবং জিপিএ- ৫ পেয়েছে ১ জন শিক্ষার্থী। এমএ চন্ডিপুর রেজাউল হক উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১৬০ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ১৩০ জন শিক্ষার্থী এবং জিপিএ- ৫ পেয়েছে ১ জন শিক্ষার্থী। ষাটশালা আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় এন্ড কলেজ থেকে ৬১ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ৫২ জন শিক্ষার্থী। চৌব্বাস জাহানারা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১১৬ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ৭৭ জন শিক্ষার্থী। দীর্ঘভূমি বঙ্গবন্ধু উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১০৫ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ৮৫ জন শিক্ষার্থী। বগড়া উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৮৮ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ৬৪ জন শিক্ষার্থী এবং জিপিএ- ৫ পেয়েছে ৪ জন শিক্ষার্থী। বেজুরা শেখ মুজিবুর রহমান উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১০১ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ৮৮ জন শিক্ষার্থী। মহালক্ষীপাড়া শরীফ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৭৬ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ৫৮ জন শিক্ষার্থী এবং জিপিএ- ৫ পেয়েছে ১ জন শিক্ষার্থী। টাকই উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৭২ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ৬৯ জন শিক্ষার্থী। মকিমপুর আবদুল মতিন খসরু উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৭৭ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ৪৭ জন শিক্ষার্থী। বেড়াখলা আবদুল মতিন খসরু বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৩২ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ২৪ জন শিক্ষার্থী। অপর দিকে মাদ্রাসা বোর্ডের অধিনে চান্দলা ইসলামিয়া গাউসিয়া আলিম মাদ্রাসা থেকে ৫৭ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ৫৬ জন শিক্ষার্থী এবং জিপিএ- ৫ পেয়েছে ১ জন শিক্ষার্থী। শিদলাই দারুল ইসলাম ফাজিল মাদ্রাসা থেকে ৪৫ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ৪৩ জন শিক্ষার্থী এবং জিপিএ- ৫ পেয়েছে ৩ জন শিক্ষার্থী। কান্দুঘর ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসা থেকে ৩৩ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ৩০ জন শিক্ষার্থী। পূর্বপোমকারড়া জি.ম.হু.কা. দাখিল মাদ্রাসা থেকে ২০ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ১৯ শিক্ষার্থী। বাগড়া দারুল উলুম ফাজিল মাদ্রাসা থেকে ৪৮ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে শতভাগ এবং জিপিএ- ৫ পেয়েছে ১ জন শিক্ষার্থী। মহালক্ষীপাড়া ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসা থেকে ৪৩ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ৪১ জন শিক্ষার্থী এবং জিপিএ- ৫ পেয়েছে ২ জন শিক্ষার্থী। অলুয়া ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসা থেকে ৫১ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ৩৬ জন শিক্ষার্থী। বালিনা ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসা থেকে ২৭ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ২৩ জন শিক্ষার্থী। গোপালনগর ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসা থেকে ২১ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ২০ জন শিক্ষার্থী। পূর্ব চন্ডিপুর ইলামিয়া দখিল মাদ্রাসা থেকে ১৭ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ৭ জন শিক্ষার্থী। বড়ধুশিয়া ইসলামিয়া দখিল মাদ্রাসা থেকে ৪৯ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ৪৮ জন শিক্ষার্থী। সাহেবাবাদ ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসা থেকে ৩৮ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ২৯ জন শিক্ষার্থী। মাদ্রাসা-ই-তালিমুল মিল্লাত দাখিল মাদ্রাসা থেকে ৩২ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ৩২ জন শিক্ষার্থী। শিদলাই খাদিজাতুল কুবরা (রাঃ) মহিলা দাখিল মাদ্রাসা থেকে ২৩ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ২২ জন শিক্ষার্থী। ইসলামাবাদ আলিম মাদ্রাসা থেকে ৩২ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ৩১ জন শিক্ষার্থী। বড়ভাঙ্গাইন্না ফৌজিয়া খসরু দাখিল মাদ্রাসা থেকে ৩২ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ২৯ জন শিক্ষার্থী। নাইঘর ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসা থেকে ৪৭ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ৪৭ জন শিক্ষার্থী। টাটেরা হাজী মাষ্টার রেহান উদ্দিন আখন্দ মহিলা দাখিল মাদ্রাসা থেকে ১৫ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ১০ জন শিক্ষার্থী। ফয়েজিয়া রাজ্জাকিয়া ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসা থেকে ৪৫ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ৩৪৫ জন শিক্ষার্থী এবং জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ জন শিক্ষার্থী। ষাইটশালা দারুস সুন্নাহ দাখিল মাদ্রাসা থেকে ৪৬ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ৪০ জন শিক্ষার্থী। রামচন্দ্রপুর ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসা থেকে ৩১ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ৩০ জন শিক্ষার্থী। এছাড়াও বেগম দিলরোজ ওবায়েদুল্লাহ কারিগরি ইনিসটিটিউট থেকে ৪৭ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ৪৭ জন শিক্ষার্থী এবং জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৬ জন শিক্ষার্থী। চান্দলা কেবি হাই স্কুল এন্ড কলেজের কারিগরি শাখা থেকে ৩৭ জন অংশ গ্রহন করে পাস করেছে ৩১ জন শিক্ষার্থী।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: