কুমিল্লার মুরাদনগরে পূর্বশত্রুতার জের ধরে জাকির হোসেন (৩৫) নামের এক শারীরিক প্রতিবন্ধীকে কুপিয়ে জখম করেছে তার আপন চাচা। এসময় তাকে বাচাঁতে গেলে মা নেহেরা বেগম (৫৫) ও তার ভাই নিজাম সরকারকে রড দিয়ে পিটিয়ে গুরুত্বর আহত করে। রডের আঘাতে মা নেহেরা বেগমের বাম হাত ও দাঁত ভেঙ্গে যায়।

ঘটনা চলাকালিন সময় আহতের বাড়িঘরেও হামলা চালিয়ে ক্ষতিসাধন করা হয়। এদিকে গুরুতর আহত ওই প্রতিবন্ধী জাকির হোসেনকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়ার পর মা নেহেরা বেগমের অবস্থার অবনতী হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার বাঙ্গরা বাজার থানাধীন কোড়ের পাড় গ্রামে।

এ ঘটনায় প্রতিবন্ধী জাকির হোসেনের ভাই নিজাম সরকার বাঙ্গরা বাজার থানায় বাদী হয়ে তার চাচা মজিবুর রহমান, আবু হানিফ, কালন সরকার ও চাচাতো ভাই ইসমাইল হোসেনসহ ৭জনকে আসামী করে একটি অভিযোগ দায়ের করেছে।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার বাঙ্গরা বাজার থানাধীন কোড়েরপার গ্রামের আবদুল আওয়াল সরকারের ছেলে শারীরিক প্রতিবন্ধী জাকির হোসেনের পরিবারের সঙ্গে তার আপন চাচা মজিবুর রহমান (৪৫) এর সাথে জমিজমা নিয়ে দীর্ঘদিন থেকে বিরোধ চলে আসছে।

এরই জের ধরে ঘটনার দিন মঙ্গলবার সকালে (১২ জানুঃ) প্রতিবন্ধী জাকিরের ছোট ভাই জয়নাল আবেদীনের সাথে চাচা মজিবুর রহমানের কথাকাটাকাটি ও হাতাহাতি হয়। এসময় তার চিৎকার শুনে প্রতিবন্ধী জাকির ও তার মা এগিয়ে গেলে মজিবুর রহমানের হাতে থাকা রামদা দিয়ে জাকির কে কুপিয়ে জখম করে। এসময় ছেলেকে বাচাঁতে গেলে আবু হানিফ ও কালন সরকারের হাতে থাকা লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে মা নেহেরা বেগমকেও গুরুত্বর আহত করে। পরে স্থানীয়রা প্রতিবন্ধী জাকির হোসেন ও তার মা নেহেরা বেগমকে উদ্ধার করে মুরাদনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে।

বাঙ্গরা বাজার থানার অফিসার ইনচার্জ কামরুজ্জামান তালুকদার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, এ বিষয়ে একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: