কুমিল্লার গৌরিপুরে ”রংধনু হসপিটাল” সিলগালা; মালিক গ্রেফতার

ডেস্ক রিপোর্টঃ কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার গৌরীপুরে একটি হাসপাতাল সিলগালা করে দিয়েছে প্রশাসন। গত সোমবার ‘রংধনু হসপিটালে’ নুরজাহান বেগম (২২) নামে এক সিজারিয়ান প্রসূতির মৃত্যু হয়। এ ঘটনার পর দুটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়।

বুধবার দুপুরে দাউদকান্দি উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. মাহবুব আলম হাসপাতালটি সিলগালা করে দেন। এ সময় দাউদকান্দি উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মো. জালাল হোসেন, আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. মো. শাহিনূর আলম সুমন ও পুলিশ উপস্থিত ছিলেন।

এ হাসপাতালে চিকিৎসকের অবহেলায় প্রসূতি নুরজাহান বেগমের (২২) মৃত্যু হয় বলে অভিযোগ ওঠে। নুরজাহান কুমিল্লার তিতাস উপজেলার জিয়ারকান্দি ইউনিয়নের বাঘাইরামপুর গ্রামের মো. ডালিম মিয়ার স্ত্রী।

নিহতের স্বামী মো. ডালিম জানান, গত শুক্রবার বিকেল ৫টায় গৌরীপুরে ‘রংধনু হসপিটালে’ প্রসূতি নুরজাহানের সিজার করা হয়। সেখানে এক ছেলে সন্তান জন্ম দেন তিনি। শনিবার সকালে রোগীর অসুস্থ হয়ে পড়লে বিকেলে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

রোববার রাত ২টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নুরজাহানের পেটে দ্বিতীয়বার অপারেশন করা হয়। রোগীর অবস্থার অবনতি হলে তাকে ঢাকার পান্থপথের একটি হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি করা হয়। সোমবার রাতে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় নুরজাহানের মৃত্যু হয়।

রোগীর স্বজনরা নুরজাহানের লাশ নিয়ে ‘রংধনু হসপিটালের’ সামনে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ করেন। নিহতের ভাই মোস্তাক বেপারী জানান, অতিরিক্ত রক্তক্ষরণের কারণে নুরজাহানের মৃত্যু হয়েছে বলে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা জানিয়েছেন।

এদিকে বুধবার প্রসূতি নুরজাহান বেগমের মৃত্যুর ঘটনায় রংধনু হসপিটাল মালিক মোঃ মকবুল হোসেনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। নিহতের স্বামী মোঃ ডালিম মিয়া বাদী হয়ে দাউদকান্দি মডেল থানায় সিজারীয়ান অপারেশনকারী ডাঃ শাহনাজ পারভীন ও রংধনু হসপিটাল মালিক মোঃ মকবুল হোসেনসহ আরো ২/৩ জনকে অজ্ঞাত করে মামলা দায়ের করেন। বুধবার পুলিশ হসপিটাল মালিক মকবুল হোসেনকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরন করেন।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন:

ভালো লাগলে শেয়ার করুনঃ