ডেস্ক রিপোর্টঃ কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে দূর্ঘটনা কবলিত গাড়ি উদ্ধার করতে গিয়ে অন্য কভার ভ্যানের চাপায় হাইওয়ে পুলিশের এএসআই আক্তার হোসেনসহ ৩জন নিহত। এঘটনায় আহত হয় আরও দুইজন। ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের চৌদ্দগ্রাম উপজেলার বাবুর্চিবাজার সৈয়দপুর এলাকায় আজ ভোর ৫টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

হাইওয়ে পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রহমত উল্লাহ জানান, আজ ভোর ৫টার দিকে বাবুর্চিবাজার সৈয়দপুর এলাকায় চট্টগ্রাম মুখি সড়কে দুটি কভার ভ্যানের সংঘর্ষে একটি দূর্ঘটনা ঘটে। জরুরী সেবা ৯৯৯ এর মাধ্যমে দূর্ঘটনার সংবাদ পেয়ে ওই দূর্ঘটনা কবলিত গাড়ি দুটিকে উদ্ধার করতে হাইওয়ে পুলিশের একটি টিম রেকার নিয়ে উদ্ধার কাজ করছিল।

এসময় পিছন থেকে দ্রুতগামী অন্য একটি কভার ভ্যান উদ্ধার কাজ করতে যাওয়া রেকারটিকে পিছন থেকে ধাক্কা দেয়। রেকারটিও রাস্তার পাশে থাকা হাইওয়ে পুলিশের পিকআপ ভ্যানকে সজোরে ধাক্কা দিলে পিকআপ ভ্যানের পাশে দাড়িয়ে থাকা কর্তব্যরত এএসআই আক্তার হোসেনসহ ৫জন গুরুতর আহত হয়। এদের মধ্যে ঘটনাস্থলেই মারা যায় প্রথম দূর্ঘটনা কবলিত কভারভ্যানের চালক ও হেলপার। পরে চৌদ্দগ্রাম হাসপাতালে নিয়েগেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক এএসআই আক্তার হোসেনকে মৃত ঘোষনা করে।

নিহত এএসআই আক্তার হোসেন এর বাড়ি কুমিল্লার বরুড়া উপজেলায় এবং অপর নিহত কভার ভ্যানের হেলপার সুমন লক্ষীপুর জেলার নন্দীগ্রামের বাবুল মিয়ার ছেলে ও নিহত ফাহাদ সেনবাগ উপজেলার সালেহ আহমেদের ছেলে।

দূর্ঘটনা কবলিত গাড়ি ৩টি ও নিহতদের লাশ উদ্ধার করেছে হাইওয়ে পুলিশ।