কুমিল্লার লাকসামে ৬ নারী ছিনতাইকারীকে আটক করা হয়েছে। বুধবার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রোগীদের মোবাইল ফোন ও টাকা ছিনতাইকালে স্থানীয়রা তাদেরকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে।

আটকরা হলেন, হবিগঞ্জ সদর উপজেলার দুলিয়াখাল মোহনপুর এলাকার সালমা বেগম (২৬), হাছনা আক্তার (২৫), মাধবপুরের কুতুব চান (৩০), বি-বাড়ীয়া জেলার নাছিরনগর উপজেলার উত্তর আগলাবাড়ী এলাকার ধরমন গ্রামের হাজেরা খাতুন (২৩), বিলকিছ বেগম (২৬), নারগিস আক্তার (৩০)। লাকসাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা যায়, ওইদিন সকাল সাড়ে ১০টার দিকে হাসপাতালের বহির্বিভাগে চিকিৎসা নিতে আসা শত শত রোগীর ভিড়ে সুযোগ বুঝে ওইসব সংঘবদ্ধ ছিনতাইকারীরা কৌশলে একাধিক নারী রোগীর মোবাইল ফোন ও টাকা নিয়ে যায়। ওই সময় চিকিৎসা নিতে আসা অন্যরা বিষয়টি টের পেয়ে স্থানীয় জনতার সহায়তায় ছয় ছিনতাইকারীকে আটক করে। এ সময় আরও দুইজন ছিনতাইকারী পালিয়ে যায়।

আটক ছিনতাইকারীদের লাকসাম উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার নিকট হস্তান্তর করলে তিনি লাকসাম থানা পুলিশে খবর দেন। পরে পুলিশ এসে তাদের থানায় নিয়ে যান।

লাকসাম উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ আবদুল আলী জানান, হাসপাতালের বহির্বিভাগে সবসময় রোগীদের ভিড় থাকে। ওই সুযোগে বহিরাগত কিছু নারী ছিনতাইকারী রোগী সেজে এখানে ভিড় করে এবং কৌশলে মোবাইল ফোন, টাকা ও বিভিন্ন জিনিষপত্র ছিনতাই করে নিয়ে যায়।

তিনি আরও বলেন, এ ব্যাপারে উপজেলা আইন শৃংখলা কমিটির সভায় ও লাকসাম থানা পুলিশকে একাধিকবার অবহিত করা হয়েছে। এসব চুরি-ছিনতাই কিছুদিন বন্ধ থাকলেও হাসপাতালে জনবল সংকটের কারণে স্থায়ীভাবে রোধ করা সম্ভব হচ্ছে না।

লাকসাম থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. নিজাম উদ্দিন নারী ছিনতাইকারীদের আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, আটকদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তবে এখন পর্যন্ত কেউ লিখিত অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।