কুমিল্লা নগরীর চাঙ্গিনীতে ব্যবসায়ী আক্তার হোসেনকে কুপিয়ে হত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছে এলাকাবাসী। রবিবার কুমিল্লা নগরীর ২৩ নং ওয়ার্ডের চাঙ্গিনী এলাকায় কাউন্সিলর আলমগীরের কার্যালয়ের সামনে মানববন্ধন করে চার শতাধিক নারী পুরুষ।

নিহত আক্তার হোসেনের মেয়ে শিরিন আক্তার পলি বলেন, বাবার হত্যার বিচার চাই, খুনিদের ফাঁসি চাই। ১০/১২ দিন হয়ে গেছে, এখনও প্রধান আসামি গ্রেফতার হয়নি। কাউন্সিলরের লোকজন মামলা তুলে নেওয়ার জন্য আমাদের হুমকি দিচ্ছে।

নিহত আক্তার হোসেনের ছোট ভাই মো. আলাল বলেন, এ খুনিকে দলীয় পদ থেকে বহিষ্কার ও কাউন্সিলর পদ থেকে অপসারণের দাবি করছি। কাউন্সিলরসহ সকল আসামিদের দ্রুত বিচার করা হোক। আমরা তার ফাঁসি চাই।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, আমরা ভুল মানুষকে ভোট দিয়ে কাউন্সিলর নির্বাচিত করেছিলাম। ক্ষমতা পাওয়ার পর সে চাঁদাবাজি, মানুষ হত্যা করবে এমন জানলে তাকে ভোট দিতাম না। অবিলম্বে অত্যাচারী কাউন্সিলরকে অপসারণ করে বিচারের আওতায় আনা হোক।

মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন ফরিদা বিদ্যায়তনের সিনিয়র শিক্ষক শাহজান মাস্টার, চাঙ্গিনী সার্বিক গ্রাম উন্নয়ন সমবায় সমিতির সভাপতি ও ২৩নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ এর সহ-সভাপতি মমতাজ মেম্বার, চাঙ্গিনী বাইতুন নূর জামে মসজিদের ইমাম শহিদুল ইসলাম, ২৩নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাফেজ মো. মনির হোসেন, পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট ছাত্রলীগ সভাপতি নাজমুল হাসান সাকিব, ২৩নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক মোশারফ হোসেন সৈকত, সাংগঠনিক সম্পাদক শাকিল আহম্মেদ, মহিউদ্দিনসহ অন্যান্যরা এ মানবন্ধনে অংশ গ্রহণ করে।

প্রসঙ্গত, গত ১০ জুলাই জুমার নামাজের পরে কয়েক শ’ লোকের সামনে মসজিদ থেকে টেনে হিঁচড়ে বের করে আক্তার হোসেনকে কাউন্সিলর আলমগীরসহ তার পরিবারের সদস্যরা কুপিয়ে হত্যা করে বলে নিহতের পরিবারের সদস্যদের দাবি। এ ঘটনায় কাউন্সিলরসহ ১০ জনের নামে মামলা করেছে নিহতের স্ত্রী। তাদের মধ্যে তিনজনকে গ্রেফতার করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: