দিদারুল ইসলাম (তুহিন): ঝরাজীর্ণ পুরাতন ভবনে চলছে কুমিল্লার টেলিফোন রাজস্ব অফিস। ভবনের বিভিন্ন অংশের দেয়ালে ধরেছে ফাটল। রং করা হয়েছে অনেক দিন আগে। খসে পরেছে ভবনের বাহিরের দেয়ালের আস্তরণ। ভবনটির ভিতরের অংশে ছাদের আস্তরণ অনেক যায়গায় খসে পরেছে আরও খসে পরার আশঙ্কা রয়েছে। ভবনের বিদ্যুতের লাইন গুলো রয়েছে মারাত্নক ঝুঁকিতে। যে কোন সময় সর্ট সার্কিট হয়ে ঘটতে পারে বড় ধরনের দূর্ঘটনা । মরিচা ধরেছে ভবনের জানালা গুলোতে। বেশির ভাগ জানালার গ্লাস ভাঙ্গা একটু বৃষ্টি হলেই  জানালা দিয়ে পানি পরে। অফিসটির সামনের অংশে কোন সীমানা প্রাচীর না থাকায় রাতে অনিরাপদ হয়ে পরে অফিসটি। এ বিষয়ে ডিভিশনাল ইঞ্জিনিয়ার এ কে এম আবদুল্লাহ পাটওয়ারী বলেন, টেলিফোন রাজস্ব অফিসের সীমানা প্রাচীর  সংস্কার কাজের কোন পরিকল্পনা এই মুহুর্তে  নেই। মাদক সেবীরা অফিস প্রাঙ্গনে  মাদক সেবন করে দিনে দুপুরে। এতে অফিসে আসা নারী গ্রাহকরা ভীত সন্তস্ত হয়ে পরে।

রাতে পরিত্যক্ত ভবনে যৌনকর্মীদের রয়েছে নিয়মিত যাতায়ত, চলে ইয়ারা সেবনও। গেইটের অংশে দুটি অবৈধভাবে চলছে দুটি চায়ের দোকান। ভবনটির প্রবেশ পথে মাদক সেবীরা  প্রায় প্রতিদিনই অপরিষ্কার ও অপরিছন্ন করে রাখে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এই অফিসের এক কর্মকর্তা জানায় অফিসটি ঝড়াঝির্ণ হয়ে পরেছে ভুমিকম্প ঝুঁকিতে  থাকা ভবনে অফিস করতে অনেক ভয় লাগে, সীমানা প্রাচীর না থাকায় দিনে দুপুরে মাদক সেবীরা প্রবেশ করে। কিছুদিন আগে অফিসে পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম চলার সময় মাদক সেবীরা এসে চাঁদা দাবী করে। পরে চাঁদা না পেয়ে হুমকি ধামকি দিয়ে চলে যায়।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: