কুমিল্লা সদর দক্ষিণ উপজেলার গলিয়ারা উত্তর ইউনিয়নের একবালিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নতুন বই বিতরণে ছাত্র-ছাত্রীদের কাছ থেকে অবৈধভাবে টাকা নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে। এ ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়েছেন অভিভাবক ও এলাকাবাসী।

জানা যায়, গত ১ জানুয়ারি শুক্রবার কুমিল্লা সদর দক্ষিণ উপজেলার গলিয়ারা উত্তর ইউনিয়নের একবালিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীরা বই নিতে এলে তাদের কাছ থেকে ৫০/১০০ টাকা খরচের কথা জানায় স্কুলের শিক্ষকরা। টাকা না দেওয়ার কারণে অধিকাংশ কোমলমতি শিক্ষার্থীদের বই না দিয়ে ফিরিয়ে শিক্ষকরা। পরে অভিভাবকরা টাকার বিনিময়ে বাধ্য হয়ে সরকারি বই কেনেন। এ ঘটনার প্রতিবাদে স্কুলের প্রধান শিক্ষক ইসমাইল হোসেন বাবুলের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছেন অভিভাবক ও এলাকাবাসী। বিষয়টি সঠিক তদন্তের মাধ্যমে বিভাগীয় ব্যবস্থার দাবি জানিয়েছেন সচেতন মহল।

স্থানীয় বাসিন্দা ও সাবেক মেম্বার হুমায়ুন বলেন, এই প্রথম টাকার বিনিময়ে আমার নাতিকে নতুন বই কিনে দিতে হয়েছে। বই আনতে স্কুলে গেলে টাকা না দেওয়ায় তাকে ফিরিয়ে দেয়। পরে ৫০ টাকার বিনিময়ে নতুন বই দেওয়া হয়।

একবালিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ইসমাইল হোসেন বাবুল বলেন, ভর্তির বাবদ টাকা নেওয়া হয়েছে। নতুন বইয়ের কোনও টাকা নেওয়া হয়নি।

একবালিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি হরিপদ জানান, কোমলমতি শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে টাকা উত্তোলন অবৈধ। তদন্ত করে ম্যানেজিং কমিটির পক্ষ থেকে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানান তিনি।

এ ব্যাপারে সদর দক্ষিণ উপজেলা নির্বাহী অফিসার শুভাশিস ঘোষ জানান, শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে টাকা নেওয়ার প্রমাণ মিলেছে। এ বিষয়ে জেলা শিক্ষা অফিস যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

কুমিল্লা জেলা শিক্ষা অফিসার আব্দুল মান্নান জানান, অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় অভিযুক্ত শিক্ষকের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: