নাঙ্গলকোট-লাকসাম সড়কে দুই শ্রমিক সংগঠনের দ্বন্ধে ৩দিন সিএনজি চলাচল বন্ধ

মো.ওমর ফারুকঃ কুমিল্লার নাঙ্গলকোট – লাকসাম সড়কে দুই শ্রমিক সংগঠনের দ্বন্ধে গত তিনদিন ধরে ভাড়ায় চালিত সিএনজি চলাচল বন্ধ রয়েছে। এতে চরম ভোগান্তিতে পড়ছে সাধারণ মানুষ। এ নিয়ে দুই শ্রমিক সংগঠন পরস্পর অভিযোগ তুলেছেন।

নাঙ্গলকোট সিএনজি অটোরিকশা মালিক শ্রমিক ঐক্য পরিষদের সভাপতি আবু বক্কর সিদ্দিকুর রহমান বলেন, নাঙ্গলকোট থেকে কুমিল্লা সড়কে কুমিল্লা সুপার বাস পরিবহন সার্ভিস দেওয়াতে লাকসাম সিএনজি ষ্ট্যান্ডের কেরানি জসীম ও চালকরা লাকসামগামী সকল সিএনজি চালিত অটোরিকশা চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে, লাকসাম সিএনজি কেরানি জসীমকে প্রত্যাহারের দাবী জানান সংগঠনটির সভাপতি।

লাকসাম ষ্টান্ডের কেরানি লাকসাম পৌরসদরের গাজিমুড়া গ্রামের মৃত. আব্দুল জাব্বারের ছেলে মো. জসীম বলেন, নাঙ্গলকোট সিএনজি ষ্টান্ডে ৪০ টাকা জিপির বদলে ১শ’ টাকা দাবী করায়, গত শুক্রবার রাতে লাকসামের কয়েকজন চালককে মারধর করে। এর জের ধরে সিএনজি চলাচল বন্ধ রয়েছে।নাঙ্গলকোট সিএনজি ষ্ট্যান্ড থেকে শাহাপুর গিয়ে দাড়ায়। অপরদিকে লাকসাম থেকে সিএনজি শাহাপুর এসে দাড়ায়। এতে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করছেন লাকসামের সিএনজি চালকরা। নাঙ্গলকোট থেকে লাকসামের ভাড়া ৩০ টাকা। নাঙ্গলকোটের সিএনজি চালকরা শাহাপুর রাস্তায় যাত্রীদের নামিয়ে দিয়ে তাদের কাছ জনপ্রতি ভাড়া নিচ্ছেন ১৫ টাকা। লাকসামের সিএনজি চালকরা ১৫ টাকার ভাড়া আদায় করছে ২৫ টাকা।

কয়েকজন যাত্রী অভিযোগ করেন,যেখানে নাঙ্গলকোট টু লাকসাম যেতে সময় লাগত ২০-২৫ মিনিট এখন শাহাপুর নামকস্থানে গাড়ি যাত্রা বিরতি দেওয়ার কারনে সময় অপচয় হচ্ছে অধিক।অন্য দিকে ভাড়াও ১০ টাকা বেশি দিতে হচ্ছে।যাত্রীরা প্রশাসনের হস্তক্ষেপ চেয়েছেন। একটি সূত্রে জানা য়ায়, লাকসাম-নাঙ্গলকোট সড়কে প্রতিদিন প্রায় ২ শতাধিক ভাড়ায় চালিত সিএনজি চলাচল করে। গতকাল সোমবার বেলা ১১ টার দিকে শাহাপুর এলাকায় নাঙ্গলকোট উপজেলার টুয়া গ্রামের মো. ফরিদের ছেলে সিএনজি চালক মো. হিরনকে বহিরাগত কয়েকজন মারধর করে।

এ বিষেেয় নাঙ্গলকোট থানার ওসি মো. নজরুল ইসলাম পিপিএম বলেন, কেউ থানায় অভিযোগ দেয়নি, অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন:

ভালো লাগলে শেয়ার করুনঃ