কুমিল্লা সদর দক্ষিণের টঙ্গীরপাড় গ্রামে সাড়ে ৪ বছরের এক শিশুকে চকলেট দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে ধ’র্ষণ করে মেহেদী হাসান (১৪) নামের এক ফার্নিচার মিস্ত্রি। ধ’র্ষণের ঘটনায় ওই শিশুর বড় ভাই বাদী হয়ে কুমিল্লা সদর দক্ষিণ মডেল থানায় নারী ও শিশু নি’র্যাতন দমন আইনে একটি মা’মলা দায়ের করেন।

বিজ্ঞাপন

সূত্রে জানা যায়, কুমিল্লা জেলার সদর দক্ষিণ উপজেলার চৌয়ারা ইউনিয়নের কিং টঙ্গীরপাড় গ্রামের আব্দুল জলিলের ছেলে মেহেদী হাসান গত ১০ মার্চ মঙ্গলাবার সাড়ে ৪ বছরের এক শিশুকে চকলেট দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে কৌশলে পাশের একটি চৌচালা ঘরে নিয়ে ধ’র্ষণ করে।

পরবর্তীতে ওই শিশুর মা অনেক খোঁজাখুজির পর র’ক্তাক্ত ও কান্নারত অবস্থায় ধ’র্ষক মেহেদী হাসানের চৌচালা ঘর থেকে তাকে উদ্ধার করে। ধ’র্ষণের ঘটনায় ১১ মার্চ বুধবার ভি’কটিমের বড় ভাই মো: মোক্তার হোসেন বাদী হয়ে নারী ও শিশু নি’র্যাতন দমন আইন ২০০০ (সংশোধনী/ ২০০৩) এর ৯ (১) ৩০ ধারায় কুমিল্লা সদর দক্ষিণ মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলার আসামিরা হলেন- সদর দক্ষিণের টঙ্গীরপাড় গ্রামের ধ’র্ষক মেহেদী হাসান, তার পিতা মো: আব্দুল জলিল ও মাতা মোসা: জোহরা বেগম। বৃহস্পতিবার সদর দক্ষিণ মডেল থানার এস.আই খাদেমুল বাহার ধ’র্ষক মেহেদীকে গ্রে’ফতার করে।

মামলার বাদী মোক্তার হোসেন বলেন, ধ’র্ষকের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করার পর থেকে বিবাদী পক্ষের লোকজন মামলা তুলে নেয়ার জন্য আমাদের প্রতিনিয়ত হু’মকি দিচ্ছে। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

এ ব্যাপারে সদর দক্ষিণ মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মো: নজরুল ইসলাম পিপিএম জানান, ধ’র্ষক মেহেদীকে গ্রেফতারের পর আদালতের মাধ্যমে সংশোধনাগারে প্রেরণ করা হয়েছে।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: