পূবালী ব্যাংক কুমিল্লা পদুয়ার বাজার বিশ্বরোড় শাখায় স্বাক্ষর জালিয়াতি করে এক গ্রাহকের ৬ লক্ষ টাকা উত্তোলনের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় মঙ্গলবার (২৩ ফেব্রুয়ারী) ভুক্তভোগী গ্রাহক অজ্ঞাতনামা ব্যাংক কর্মকর্তা-কর্মচারি ও দুস্কৃতকারীদের বিরুদ্ধে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় কুমিল্লা সদর দক্ষিণ মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন । মামলা নং-৪৫। এ ঘটনার সাথে জড়িত থাকার সন্দেহে মঙ্গলবার রাত সাড়ে দশটায় ব্যাংকের সিকিউরিটি গার্ড ও ক্লিনারকে আটক করা হয়েছে।

সূত্রে জানা যায়, ভুক্তভোগী গ্রাহক মোঃ নজরুল ইসলাম কুমিল্লা সদর দক্ষিণ উপজেলার বারপাড়া ইউনিয়নের বিজয়পুর বাজার সংলগ্ন আলেকদিয়া গ্রামের হারুন মিয়ার ছেলে। তিনি পেশায় একজন ট্রাক চালক। তার নিজের কষ্টে অর্জিত টাকা জমা রাখা ও ছোট ভাই বিদেশ থাকার কারনে পূবালী ব্যাংক পদুয়ার বাজার বিশ্বরোড শাখায় তিনি একটি হিসাব খুলেন। যাহার হিসাব নং ৩৩৫৬১০১১০৮৩৮০। তিনি গত ১৮ই ফেব্রুয়ারী ব্যাংকে দেয়া তার ব্যবহৃত মোবাইল নং ০১৮১২-১৯৪৮৭১০ এ একটি ক্ষুদে বার্তা পান। তারপর তিনি দেখেন ক্ষুদে বার্তাটিতে তাহার ব্যাংক হিসাব থেকে ৬,০০,০০০/- (ছয় লক্ষ টাকা ) উত্তোলন করা হয়েছে। তার সাথে সাথে দিশেহারা হয়ে কর্মক্ষেত্র থেকে ছুটে আসেন বাড়িতে এবং কয়েকজনের সাথে এ বিষয়ে পরামর্শ করেন। তারপর ব্যাংকে আসার পরিকল্পনা করেন। কিন্তু ১৯তারিখ থেকে সরকারী ছুটির কারনে ব্যাংকের কার্যক্রম বন্ধ থাকায় তিনি সোমবার ব্যাংকের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদেরকে বিষয়টি জানান। ব্যাংক কর্মকর্তারা গ্রাহকের টাকার কোন সমাধান না দিয়ে উল্টো গ্রাহককে হয়রানী করে এবং টালবাহানা শুরু করে। ব্যাংক কর্মকর্তারা গ্রাহককে জানান তাহার ব্যবহৃত চেক নং বিএস২৫-বি-৪১৬৪২৫১ চেকের মাধ্যমে ব্যাংক থেকে টাকা উত্তোলন করে নিয়ে যান। সাথে সাথে গ্রাহক জানান তিনি কোন টাকা উত্তোলন করেন নাই এবং কোন চেক এ সাক্ষর করেন নাই। পরে গ্রাহক চ্যালেঞ্জ করে সিসি ক্যামেরার ফুটেজ দেখাতে বললে ব্যাংক কর্মকর্তারা জানান ব্যাংকের কম্পিউটার সহ প্রয়োজনীয় জিনিস পত্র পুড়ে গেছে। যার কারনে কোন তথ্য সরবরাহ করা যাচ্ছেনা।

গ্রাহক মোঃ নজরুল ইসলাম ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ব্যাংকের অসাধু কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের যোগসাজসে প্রতারনা করে জাল জালিয়াতির মাধ্যমে আমার স্বাক্ষর জাল করে আমার একাউন্ট থেকে ৬,০০,০০০/- ছয় লক্ষ টাকা উত্তোলন করে টাকা গুলো প্রতারনা মূলকভাবে আত্নসাৎ সহ সাক্ষ্য প্রমান নষ্ট করার হীন উদ্দেশ্য উক্ত পূবালী ব্যাংকে থাকা সিসি ক্যামেরার হার্ডডিস্ক পুড়িয়ে আলামত নষ্ট করে পেলে। আমি অজ্ঞাতনামা অসাধু ব্যাংক কর্মকর্তা কর্মচারী ও অজ্ঞাতনামা দুস্কৃতিকারীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করেছি এবং সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

এ ব্যাপারে কুমিল্লা সদর দক্ষিণ মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ দেবাশীষ চৌধুরী জানান, জালিয়াতি করে গ্রাহকের ৬ লক্ষ টাকা উত্তোলনের ঘটনায় পূবালী ব্যাংক পদুয়ার বাজার বিশ্বরোড শাখার সিকিউরিটি গার্ড ও ক্লিনারকে আটক করা হয়েছে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: